Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবনী কাজে আগ্রহী করতে ‘স্কিলস কম্পিটিশন’

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের আওতায় বাস্তবায়নাধীন স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (STEP) ২০১৪ সাল থেকে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবিত বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে স্কিলস কম্পিটিশন আয়োজন করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবনী কাজে আগ্রহী ও তাদের দক্ষতা যাচাই করতে রাজধানীতে আঞ্চলিক পর্যায়ে ‘স্কিলস কম্পিটিশন ২০১৮’ আয়োজন করা হয়েছে।

আয়োজনে ঢাকা মহিলা পলিকেটনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীসহ ২০টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অংশ নিয়ে তাদের তৈরি বিভিন্ন ধরনের উদ্ভাবনী প্রজেক্ট প্রদর্শন করেন।

শনিবার রাজধানীর শেরে বাংলা নগরস্থ ঢাকা মহিলা পলিকেটনিক ইনস্টিটিউটের আয়োজনে প্রতিষ্ঠানের মিলনায়তনে দিনব্যাপী এই স্কিলস কম্পিটিশন অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিযোগিতার শুরুতে ‘টেকনিক্যাল এডুকেশন ইন ন্যাশন বিল্ডিং’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ।

কায়কোবাদ বলেন, ‘বাংলাদেশের পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটে যারা পড়াশোনা করেন, তাদের বুদ্ধিমত্তায় ঘাটতি নেই। তাদের সুযোগ-সুবিধা তৈরি করে দিতে হবে। আমরা যদি কোনো বিষয়ে উৎকর্ষ অর্জন করতে চাই, সবচেয়ে ব্যয় সাশ্রয়ী পদ্ধতি হলো প্রতিযোগিতা। দেশের ছেলে-মেয়েরা সেই প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়েছে।’

‘দেশের ছেলে-মেয়েরা কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ে ভালো। তবে বাংলাদেশ প্রোগ্রামিং থেকে খুব ভালো পরিমাণ আয় করতে পারছে না। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ প্রতিবছর সফটওয়্যার রপ্তানি করে ১৪০ বিলিয়ন ডলার উপার্জন করে। আমরা তাদের সাত গুণ ছোট দেশ হিসেবে ২০ বিলিয়ন ডলার উপার্জন করার মতো সক্ষমতা আমাদের থাকা উচিত।’

আয়োজকরা জানান, ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনেক উদ্ভাবনী প্রতিভা রয়েছে। এই প্রতিভাকে আরো জাগ্রত এবং তাদের মধ্যে যে উদ্ভাবনের চেতনা রয়েছে সেটা আরো শাণিত করতে এই আয়োজন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য,প্রতিযোগিতাটির অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে কারিগরি শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা বিকাশের পথ প্রশস্ত করা, শিল্প-সংযোগ সুদৃঢ় করা এবং কলকারখানাসমূহকে উদ্ভাবনী প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত করার মধ্য দিয়ে দেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রযাত্রায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব রওনক মাহমুদ। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ সৈয়দ নূরন্নবী।

সিএসবি/জহির