Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

এক এতিমখানা নিয়ে এতো তোলপাড় কেন?

নিউজ ডেস্ক:
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় আজ বৃহস্পতিবার। বেলা ১১টার দিকে তিনি আদালতে পৌঁছবেন।

আর এ রায়কে ঘিরে গতকাল বুধবার সন্ধ্যা থেকে রাজধানীতে জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালটাও আতঙ্কে কাঁটছে রাজধানীবাসীর।

সকালে মতিঝিল, শাহবাগ, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, মহাখালী, বনানী, কুড়িল এলাকাগুলো একেবারেই ফাঁকা দেখা যায়।
এসময় রাস্তায় যেমন যানবাহন ছিল না, তেমন ছিল না লোকজনও। চাকরিজীবী অনেকেই শঙ্কা নিয়ে অফিসের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছেন। কেউ কেউ আজ আগেভাগেই অফিসে যাত্রা করেছেন। তাদের মনে অজানা এক আতঙ্ক, দেশে কি যেন ঘটতে যাচ্ছে।

মতিঝিল থেকে মিরপুরগামী বিকল্প বাসে উঠে দেখা যায়, মাত্র ৬ জন যাত্রী। সেই যাত্রী নিয়ে অবশ্য গাড়িচালক যাত্রা শুরু করেছেন। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, মামা টাকা আগে না গাড়ি আগে? যদি গাড়ি ভাঙচুর হয়, তবে তো বিপদে পড়বো। তাছাড়া পুলিশ কোথাও গাড়ি দাঁড়াতে দিচ্ছে না। গুলিস্তান-মতিঝিলে তো একেবারেই না। এ কারণে আজ যাত্রীর চিন্তা করে লাভ নেই।

তিনি বলেন, এক এতিমখানা নিয়ে এতো তোলপাড় কেন? আগে কখনো দেখিনি। কি যে হয়? আজ খালেদা জিয়ার মামলার রায়টা হয়ে গেলে আশঙ্কা কাটে।

মুগদা থেকে মতিঝিলে আসা ব্যাংক কর্মকর্তা মসিউর রহমান বলেন, অনেকটা উদ্বেগ আর শঙ্কা নিয়ে অফিসে যাচ্ছি। অন্যদিনগুলোতে স্বাভাবিকভাবে অফিস যাওয়া হয়। আজ খালেদার রায়। সকালে অজানা আশঙ্কা নিয়েই অফিস বের হয়েছি। দুই দুলের যে অবস্থান শুনতেছি, তাতে না যা দেশে আবার কি ঘটতে যাচ্ছে।

মুগদায় যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করছিলেন সিএনজি চালক আজিজ মিয়া। এসময় কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি বলেন, একটা আতঙ্ক নিয়ে সকালে খ্যাপে বের হয়েছি। সব সময় রাস্তায় আতঙ্কে আছি, না জানি কি হয়। আমরা গরীব মানুষ কাজে তো বের হতে হবে। নয়ত পেটে তো ভাত জুটবে না।

উল্লেখ্য, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।

রাজধানীর বকশিবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ আদালতের জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালত গেলো ২৫ জানুয়ারি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। আজ যার রায় ঘোষণা করা হচ্ছে।