Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

সাভারের জঙ্গি আস্তানা ঘিরে রেখেছে র‍্যাব, মালিক আটক (ভিডিও)

নিউজ ডেস্ক: সাভারের আশুলিয়ায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি একতলা বাড়ি ঘিরে রেখেছে র‌্যাব। বাড়িটির ভেতর থেকে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছে সন্দেহভাজন জঙ্গিরা। এ ঘটনায় বাড়ির মালিক ইব্রাহিমকে আটক করেছে র‌্যাবের সদস্যরা। এদিকে, ওই বাড়ির ভিতরে থাকা সন্দেহভাজন জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের জন্য র‌্যাবের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে।

শনিবার দিবাগত গভীর রাত থেকে সাভারের আশুলিয়ার নয়ারহাট চৌরাবালি এলাকার ইব্রাহিমের মালিকানাধীন ওই একতলা বাড়িটি জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ঘেরাও করে র‌্যাব-৪ এর সদস্যরা। পরে র‌্যাবের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়ির ভেতর থেকে সন্দেহভাজন জঙ্গিরা র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে। পরে র‌্যাব সদস্যরা সতর্ক অবস্থায় অবস্থান নেয় এবং ওই বাড়ির আশপাশের বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান জানান, বাড়িটির চারপাশে র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে ভেতর থেকে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি করা হয়। বোমাও ছোড়া হয়। রাত ৩টার দিকে প্রথমে বাড়ির ভেতর থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়া হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণও ঘটানো হয়। সকালেও একইভাবে গুলি ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এখনো গুলি হচ্ছে ।

এ ঘটনায় ওই বাড়ির মালিক ইব্রাহিমকে আটক করা হয়েছে। বাড়ির মালিকের বরাত দিয়ে মুফতি মাহমুদ খান জানান, আজাদ নামের এক ব্যক্তি তৈরি পোশাক শ্রমিক পরিচয় দিয়ে দুই মাস আগে বাড়িটি ভাড়া নেন।

অভিযানের শুরুতেই বাড়িটির আশপাশ থেকে অন্য বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। অতীতে দেখা গেছে, জঙ্গিরা এ সময়ে বোমা ও গুলি ছোঁড়ে। সে জন্যই জানমালের নিরাপত্তায় বাসিন্দাদের নিরাপদ দূরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাড়ির ভেতরে থাকা বাসিন্দাদের প্রতিরোধের মুখে বাড়িটি ঘিরে আরো শক্ত অবস্থান নেন র‌্যাব সদস্যরা। এ সময় হ্যান্ডমাইকে বাড়িটির ভেতরে থাকা বাসিন্দাদের নিরস্ত্র হতে বলা হয়। তাদের আত্মসমর্পণেরও আহ্বান জানানো হয়।

তবে তাতে কর্ণপাত না করে জঙ্গিরা ভোরের দিকে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে দুটি গুলি করে। এ সময় বোমার বিস্ফোরণও ঘটানো হয় বলে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা।

র‌্যাবের এ কর্মকর্তা আরো বলেন, আমরা সার্বিকভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। যারা ভেতরে আছে, আমাদের ধারণা, একাধিক জঙ্গি সেখানে আছে। তাদের আত্মসমর্পণ করানোর প্রক্রিয়া আমরা বেশ কিছু আগেই শুরু করেছি এবং সেটা এখনো অব্যাহত আছে।

মুফতি মাহমুদ খান আরো বলেন, বোম ডিসপোজাল ইউনিটসহ অন্যরা ঘটনাস্থলে আসছে। তারা এলে চূড়ান্ত অভিযান শুরু হবে। অভিযানে পুলিশও যোগ দিয়েছে। আমরা সার্বিকভাবে চেষ্টা করব যেন সারেন্ডার করানো যায়, তারা যেন আত্মসমর্পণ করে। সে প্রক্রিয়াটাই এখনো চলছে।