Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

কার স্বার্থে ফের চালু হলো সিটিং সার্ভিস

আকতার হাবিব

গত কয়েকদিন ধরে দেশে গণপরিবহন নিয়ে নাটক না, মহানাটকের মঞ্চায়ন চলছে। সিটিং নামের চিটিং বন্ধ হলো, কিন্তু পরিবহন মালিক শ্রমিকদের গুন্ডামি বন্ধ হলো না। সিট বন্ধ করে গাদাগাদি করে লোক তুলল, কিন্তু ভাড়া কমালোনা, বরং উল্টো মাথার উপরের ফ্যানটা পর্যন্ত খুলে নিল বদমায়েশগুলো। তাদের রুটি রুজির একমাত্র নিয়ামক এই যাত্রীদের সাথে দুর্ব্যাবহার করতে এতটুকু বিবেকে বাধলোনা হারামিগুলার। যাদের বিবেকে বাঁধা দিয়েছে তারা একডিগ্রী এগিয়ে বাস চলাচলই বন্ধ রাখলো। বাহ..কী সুন্দর নিরব প্রতিবাদ তাদের।

গত ৪/৫ দিনে মানুষের অবর্ণনীয় দুর্ভোগে অনেকেই সিটিং সার্ভিস পুনরায় ফেরা নিয়ে মায়া কান্না দেখিয়েছেন। অবশ্য যারা এমনটি করছে চাহিদার জন্য না, বরং এটা তাদের অধৈর্য এর বহিঃপ্রকাশ।

যাই হোক- গত কয়েকদিনের মহা নাটকের আপাতত একটা রফা হয়েছে, বুধবারের এলেনবাড়ির বৈঠকে। কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত ১৫ দিনের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। মানে পিছু হটেছে সরকার। দোর্দন্ড প্রতাপ দেখিয়েছে পরিবহন মালিকরা। তারা ভাড়া কমায়নি, সেবার মান বাড়ায়নি, জনগনের সাথে তাদের আচরণ বদলায়নি উল্টো এনবিআর থেকে ট্যাক্স কমানোর ঘোষণা নিয়ে নিছেন। সিটিং চালুর বৈধতা নিয়ে নিছেন। আপাত দৃষ্টিতে এই বৈঠকে তাদেরই জয় হয়েছে, পরাজয় ঘটেছে সাধারণ যাত্রী ও সরকারের।

তাহলে এখন চোখ রাখা যাক গতকালের সেই বৈঠকে- এটাকে আমি বৈঠক বলবোনা। বলবো ষড়যন্ত্রের এক গোপন শলাপরামর্শ হয়েছে এলেন বাড়িতে। কারন জনগনের ভোগান্তি হলেও জনগনকে সম্পৃক্ত করা হয়নি ওই বৈঠকে। ছিলনা সরকার পক্ষের কর্তা ব্যক্তিরাও। অথবা নিয়ম অনুযায়ি যাত্রী সাধারণকে নিয়ে গণশুনানীর আয়োজন করা যেত।

অথচ বৈঠক করেছে ঘুষখোর আর দুর্ণীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত বিআরটিএর কতিপয় কর্মকর্তারা এবং এই নাটকের মুল খলনায়ক বাস মালিকরা। তাহলে কী আলোচনা হতে পারে সেই বৈঠকে? তারা নিজেদের স্বার্থেই আলোচনায় বসেছিল সেখানে।

আমরা ধারণা করতে পারি- (স্রেফ ধারণা) বৈঠকে বাস মালিকরা বিআরটিএর কর্মকর্তাদের শাসিয়েছে, মাসে মাসে এতটাকা ঘুষ দিচ্ছি সেই টাকা কোত্থেকে আসবে?? ঘুষখোর কর্মকর্তারা তাদের ধমকে চুপসে গেছে…অথবা কর্মকর্তারা বলেছে তোমরা মাসে মাসে যে ঘুষ দেও তাতে আর পোষাচ্ছেনা, বাজারে জিনিশ পত্রের ম্যালা দাম বাড়ছে। বাস মালিকরাও তাদের উৎকোচের পরিমাণ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত জানিয়েছে। আর অমনি গনেশ উল্টে গেছে।`

ঘটনার একটা যৌক্তিক ও গ্রহনযোগ্য একটা সমাধান দিতে এদের বাইরে ২ জনকে রাখা হলো তাদের একজন নিসচা চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, উনি অবশ্য সরকারের সিদ্ধান্ত থেকে সরে না আসার প্রস্তাব করেছিল। তার যুক্তি হিসেবে তিনি বলেছেন অতীতে সরকার অনেক উদ্যোগ নিয়ে মাঝপথে আটকে গেছে। পরে আর সেই উদ্যোগ বাস্তবায়িত হয়নি। তাই এবার পিছু হটা উচিত হবে না। কিন্তু তার আপত্তি হাওয়ায় মিলে গেছে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক নাঈমুল ইসলাম খান। শুনেছি তারই মস্তিস্ক থেকে নাকি সমাধানের এই মহান থিওরি প্রসব হয়েছে। যদিও তার নৈতিকতা নিয়ে আমার ঘোর আপত্তি অাছে। উনি টকশোতে যখন কথা বলে তখন মুগ্ধ হয়ে শুনি। কিন্তু বাজারে এ-ও রটনা আছে যে কোন বিষয় স্টাবলিশ করতে তাকে নাকি কন্টাক করে নিয়ে যাওয়া হয় যুক্তি তর্ক দিয়ে বিষয়টি প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এবং তিনি এই লাইনে অনন্য। আর গতকালও তিনি ঠিক কার স্বার্থে কথা বলতে সেই মিটিংএ হাজির ছিলেন তা নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

একটি জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা প্রথম আলো থেকেই কোট করছি গতকাল বৈঠকে তার ভূমিকা, “ সিটিং সার্ভিস বন্ধের অভিযান ১৫ দিন স্থগিত রাখা এবং এটি আইনি কাঠামোতে এনে চালু করার পরামর্শটি সাংবাদিক নাঈমুল ইসলাম খানের কাছ থেকে এসেছে বলে বৈঠক সূত্র জানায়। একপর্যায়ে বিআরটিএর চেয়ারম্যান বৈঠক থেকে উঠে নিজ কক্ষে ঘুরে আসেন। এরপরই সাংবাদিকদের ভেতরে প্রবেশের সুযোগ দেওয়া হয়।

এ সময় তিনি বলেন, ‘একটা উদ্দেশ্য নিয়েই মালিকেরা সিটিং সার্ভিস বন্ধ করেছিলেন। তাঁদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা তাঁদের সে উদ্যোগে সহায়তা করেছি। তবে সিটিং সার্ভিস বন্ধ হওয়ার পর নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের অসুবিধার কথা বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে আসে। এ জন্যই সিটিং সার্ভিস বন্ধের সিদ্ধান্ত ১৫ দিন স্থগিত করা হয়েছে।’`

আমার বক্তব্য হলো, ওই বৈঠকে বাস কর্তৃপক্ষরা নিজেদের স্বার্থে কথা বলেছে। দেশ বা জনগনের স্বার্থে নয়।

কালকে কেন, কেউ জোড়ালো ভাবে সরকারের সিদ্ধান্ত অমান্যকারি বাস মালিকদের কঠোর শাস্তির দাবি জানালোনা?? আইনে আছে কেউ কারন ছাড়া বাস চলাচল বন্ধ রাখলে তাদের রুট পারমিট বাতিল করা হবে। সেই আইনের প্রয়োগ কেউ দেখালোনা কেন? জনগনের প্রতিনিধি আমাদের দুই সাহসী মেয়র মহোদয়দের রাখা হলোনা কেন ওই বৈঠকে, মাননীয় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ছিলনা কেন ঐ বৈঠকে। তাহলে দেখতাম বাস মালিকদের কতবড় বুকের পাটা ছিল গুন্ডামী করার।

অতীতের কর্মকান্ডের জন্য জনগনের প্রতিনিধি হিসেবে ঢাকার দুই মেয়র এবং মাননীয় সেতু মন্ত্রী সাহেবের প্রতি আমাদের যথেষ্ট আস্থা রয়েছে। এবং আমাদের বিশ্বাস তাদের সিদ্ধান্তেও জনগনের আশা আকাংখার প্রতিফলন ঘটতো।

যাই হোক এই কয়দিনের অবর্নীয় দুর্ভোগ আর অভিযোগের মুল বিষয় ছিল দুই টা। ১. সিটিং বন্ধ হলেও ভাড়া কমেনি। ২. পর্যাপ্ত বাস নামেনি।

অথচ এই দুই অভিযোগের কোন সুরাহা না করে বাস মালিকদের অনৈতিক দাবির কাছেই হার মেনেছে মেরুদন্ডহীন সরকারি কর্মকর্তারা। তাই আমার বিশ্বাস বুধবার বিকেলে এলেন বাড়ির ওই বৈঠকটি কোন বৈঠক ছিলনা, ছিল জনগনকে ঠকানোর এক গোপন ষড়যন্ত্র।

লেখক: সাংবাদিক, রেডিও ধ্বনি