Templates by BIGtheme NET
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

জনতা ব্যাংকের দুই ডিজিএম গ্রেফতার করেছে দুদক

নিউজ ডেস্ক: বিসমিল্লাহ গ্রুপ সংক্রান্ত দুর্নীতি মামলায় জনতা ব্যাংকের দুই ডিজিএমকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন। বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর জনতা ব্যাংক ভবন করপোরেট শাখা থেকে তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়া ওই দুই ব্যাংক কর্মকর্তা হলেন জনতা ব্যাংক ভবন কর্পোরেট শাখার ডিজিএম এস এম আবু হেনা মোস্তফা কামাল ও আজমুল হক। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানান, দুদকের পরিচালক মীর জয়নুল আবেদিন শিবলীর নেতৃত্বে উপ-পরিচালক গোলাম শাহরিয়ার চৌধুরী, এস এম রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন ও আহেরুজ্জামান এ অভিযানে অংশ নেন।

দুদক সূত্র জানায়, বিসমিল্লাহ গ্রুপের প্রায় ১ হাজার ২০০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতি, মানি লন্ডারিং ও দুর্নীতির ঘটনায় ২০১৩ সালের ৩ নভেম্বর গ্রুপটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খাজা সোলেমান আনোয়ার চৌধুরী, চেয়ারম্যান নওরিন হাসিব, প্রাইম ব্যাংকের ডিএমডি মো. ইয়াছিন আলীসহ ৫৪ জনের বিরুদ্ধে পৃথক ১২টি মামলা দায়ের করে দুদক। এসব আসামির মধ্যে বিসমিল্লাহ গ্রুপের এমডি,চেয়ারম্যানসহ ১৩ জন ১২ টি মামলার আসামি। বাকিরা বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তা। দুদকের বর্তমান পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে রাজধানীর রমনা, মতিঝিল ও নিউমার্কেট থানায় মামলাগুলো করা হয় তখনকার সময়।

জনতা ব্যাংকের ১২ জন, প্রাইম ব্যাংকের ৯ জন, প্রিমিয়ার ব্যাংকের ৭জন, যমুনা ব্যাংকের ৫ জন এবং শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের ৮ জন কর্তা ব্যক্তি রয়েছেন। জনতা ব্যাংক থেকে বিসমিল্লাহ গ্রুপের মোট ৩৩২ কোটি ৯১ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় দুটি মামলা হয়।

আসামিরা হলেন, জনতা ব্যাংক ভবন কর্পোরেট শাখার জিএম ও শাখা ব্যবস্থাপক আবদুস সালাম আজাদ, একই শাখার দুই ডিজিএম আজমুল হক ও এসএম আবু হেনা মোস্তফা কামাল, রপ্তানি বিভাগের কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার, জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা (এসইও) সৈয়দ জয়নাল আবেদীন, দুই এজিএম (রপ্তানি) অজয় কুমার ঘোষ ও ফায়েজুর রহমান ভুঁইয়া, ব্যাংকটির মগবাজার শাখার ব্যবস্থাপক রফিকুল আলম, দুই এসইও খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও আতিকুর রহমান, এলিফ্যান্ট রোড শাখার এজিএম মোস্তাক আহমদ খান এবং এসইও এস এম শোয়েব-উল-কবীর। এর মধ্যে আজমুল হক ও এস এম আবু হেনা মোস্তফা কামাল এজাহার ভুক্ত আসামি ছিলেন।